করোনাকালেও থেমে নেই কালারমারছড়া ইউনিয়নের উন্নয়নমূলক কাজ

বিজ্ঞাপন

বিশ্বের প্রাণঘাতী মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে স্তম্ভিত হয়ে আছে পুরো দেশ। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মানুষ নিজেদের ব্যবসায়িক ও প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম চালিয়ে নিচ্ছেন। সীমিত আকারে সন্ধ্যা ৭ টাঃ পর্যন্ত দোকানপাট খোলা রাখার নির্দেশনা পেয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

মহেশখালীতে বর্ষা মৌসুমে যাতায়াতের জন্য নিম্নাঞ্চল ও পাহাড়ি অঞ্চল গুলোতে ব্যাপক সমস্যা হয়ে থাকে। পাহাড়ি ঢলের পানি চলাচলের ড্রেন সুবিধা না থাকলে অনেক সময় প্রধানসড়ক তলিয়ে যায়। এতে মহেশখালীর প্রধানসড়ক হয়ে যাতায়াত করা প্রায় সাড়ে চার লক্ষ মানুষের কষ্টের সীমা থাকেনা।

তাই চলতি বর্ষা মৌসুমে যাতে কালারমারছড়ার হয়ে মহেশখালীর প্রধানসড়কে কোনো খানাখন্দের সৃষ্টি না হয়, এবং কালারমারছড়ার মানুষদের যাতে কোনো রকমের যাতায়াতের অসুবিধা না হয় তারই পরিপ্রেক্ষিতে করোনা ভাইরাস মোকাবেলার পাশাপাশি নিজ ইউনিয়নে উন্নয়ন মূলক কর্মকার্ন্ড চলমান রেখেছেন চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ।

তিনি জানান, সামাজিক দূরত্বের কথা মাথায় রেখে সরকারের সকল নির্দেশনা মেনে আমি আমার ইউনিয়নে বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন মূলক কাজ অভ্যহত রেখেছি। চলমান বর্ষায় যাতে প্রধানসড়কে কোনো খানাখন্দের সৃষ্টি না হয় সে বিবেচনায় ড্রেন সুবিধা নিশ্চিত করছি। তিনি আরো জানান, কালারমারছড়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড়ের সড়ক ড্রেনের কাজ শেষ হয়েছে।

৩ নং ওয়ার্ড় ইউনুছখালী মাইজপাড়ার কাজ ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে বর্তমানে ৭ ও ৮ নং ওয়ার্ড়ের কাজ চলমান রয়েছে। খুব শীঘ্রই এইসব ওয়ার্ড় ও এলাকার কাজ শেষ করে বাকি ওয়ার্ড় গুলোতে কাজ শুরু করবো।

আজ (৩জুলাই ২০২০) শুক্রবার কালারমারছড়া ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড় নোনাছড়ির উন্নয়ন মূলক কাজের তদারকি ও পরিদর্শন করতে গিয়ে এইসব কথা বলেন কালারমারছড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ।


সংবাদ২৪/মহেশখালী/কাব্য/এসডি

বিজ্ঞাপন

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আরও পড়ুন
Loading...
DMCA.com Protection Status