কৌশলে বাঘের মুখ থেকে বেঁচে ফিরলেন রেজাউল

বিজ্ঞাপন

সহকর্মীদের সঙ্গে সুন্দরবনে মধু আহরণ করতে যান সাতক্ষীরার শ্যামনগরের পশ্চিম কৈখালী গ্রামের গোলাম রব্বানীর ছেলে রেজাউল ইসলাম মধু। বাঘের আক্রমণে পড়েও অক্ষত ফিরে এসেছেন তিনি।

বুধবার (৭ এপ্রিল) সকাল ১০টার দিকে সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের কাছিকাটা দাড়গাঙ এলাকায় নৌকা বেঁধে মধু আহরণ করতে বনে ঢুকেন তারা।

সবই ঠিকঠাক চলছিল। হঠাৎ একটি বাঘ রেজাউলকে লক্ষ্য করে হামলে পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে অন্য সঙ্গীরা লাঠি দিয়ে গাছের গায়ে আঘাত ও চিৎকার করতে থাকলে বাঘটি একপর্যায়ে শিকার না করেই বনের মধ্যে চলে যেতে বাধ্য হয়। তবে সে সময় ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন রেজাউল।
এরই মধ্যে এলাকায় খবর ছড়িয়ে পড়ে রেজাউলকে বাঘে ধরেছে। অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে বিষয়টি নিয়ে স্ট্যাটাসও দেন।

একই খবর পান বন বিভাগের কৈখালী স্টেশনের কর্মকর্তারাও। তাদের বলা হয়, রেজাউলকে নিয়ে ফিরে আসছেন মৌয়ালরা।

তারপর বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) সকাল থেকেই তাদের অপেক্ষায় প্রহর গুণতে থাকেন স্বজন ও বন বিভাগের কর্মকর্তারা। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রেজাউলকে নিয়ে লোকালয়ে ফিরে আসেন তার সহকর্মীরা। এ সময় বিষয়টি পরিষ্কার হয়, রেজাউলকে নিয়ে যে খবর রটেছিল, তা ভুল। তবে, বাঘের সামনে পড়েও প্রাণে বেঁচে ফিরেছেন রেজাউল।

এলাকার ফেরার পর রেজাউল বলেন, মধু কাটার প্রস্তুতিকালে হঠাৎ করেই একটি বাঘ তার সামনে এসে দাঁড়ায়। কিন্তু সহকর্মীদের ভূমিকায় বাঘটি ভয় পেয়ে বনের যায়। আর প্রাণে বেঁচে যাই আমি।

বন বিভাগের কৈখালী স্টেশন কর্মকর্তা মোবারক হোসেন বলেন, খবর পেয়েছিলাম রেজাউলকে বাঘে ধরেছে। কিন্তু তিনি ভালো আছেন। তার কোনো শারীরিক ক্ষতি হয়নি।

বিজ্ঞাপন

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আরও পড়ুন
Loading...
DMCA.com Protection Status