ত্যাগের ঈদে প্রত্যাশা ‘করোনামুক্তি’

বিজ্ঞাপন

মুসলমানদের ধর্মীয়, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক জীবনে প্রতিটি ঈদ বহুমাত্রিক ব্যাঞ্জনায় উজ্জ্বলতর। রোজার কৃচ্ছ্রব্রত শেষে আসে ঈদুল ফিতর আর ত্যাগের মহিমা ও বার্তায় উদ্ভাসিত হয়ে এসেছে পবিত্র ঈদুল আজহা, যার আরেক নাম ‘কোরবানি ঈদ।’

এবারের কোরবানির ‍ঈদ অন্য সব বছরের চেয়ে আলাদা। করোনা মহামারীর মধ্যে শনিবার সারা দেশে উদযাপিত হচ্ছে মুসলিম উম্মাহর দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা। করোনার কারণে এবার রাজধানীর জাতীয় ঈদগাহসহ দেশের কোনো ঈদগাহ ও খোলা মাঠে ঈদ জামাত হয়নি।

শনিবার (১ আগষ্ট) সকাল ৭ টায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ঈদের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে ইমামতি করবেন বায়তুল মোকাররমের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মাওলানা মো. মিজানুর রহমান। সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে লোকজন জামায়াতে অংশ নেয়।  এ ব্যাপারে আগে থেকেই সরকারের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথা বলা হয়েছিল।

নামাজ শেষে মোনাজাতে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করা হয়েছে। পাশাপাশি সম্প্রতি বিশ্ব ও বাংলাদেশজুড়ে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতদের জন্য দোয়া করা হয়। এছাড়া মোনাজাতে সবার গুনাহ মাফ ও মৃত ব্যক্তির কবরের আজাব মাফ চাওয়া হয়েছে। বিশ্ব শান্তির জন্য দোয়া করা হয়।

এছাড়াও বায়তুল মোকাররম মসজিদে পর্যায়ক্রমে আরও পাঁচটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৭  ৫০, ৮টা ৪৫, ৯টা ৩৫, ১০টা ৩০ এবং ১১টা ১০ মিনিটে অনুষ্ঠিত হয় শেষ ঈদ জামাত।

করোনার কারণে নামাজ শেষে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা কোলাকুলি থেকে বিরত থেকে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

এর আগে সকাল থেকেই মাস্ক পরে মুসল্লিরা দলে দলে বায়তুল মোকাররমে ঈদের প্রথম জামাতে অংশ নেয়ার জন্য যোগ দেয়। নির্ধারিত সময় সকাল ৭টায় নামাজ শুরু হয়।

একইভাবে স্বাস্থবিধি মেনে সারা দেশে ঈদ পালিত হচ্ছে।

#সংবাদ২৪/ঢাকা/এমসি

বিজ্ঞাপন

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আরও পড়ুন
Loading...
DMCA.com Protection Status